মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

বিবাহ রেজিস্ট্রার

বিয়ের রেজিস্ট্রার করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ

বিয়ে রেজিস্ট্রেশনের গুরুত্ব অনেক বেশি। বিয়ের দিনই রেজিস্ট্রেশন করা যুক্তিযুক্ত। যেহেতু বিয়ের লিখিত প্রমাণ হচ্ছে রেজিস্ট্রেশন তাই বিয়ে সংক্রান্ত যে কোন প্রশ্নে, যে কোন সমস্যায় এর প্রয়োজন হয়। যেহেতু শাহানার বিয়ে রেজিস্ট্রেশন করা ছিল না তাই শাহানার সাক্ষী, কাজী ও বিয়ের সময় তোলা ছবি দিয়ে উকিল আদালতে রফিকের সাথে তার বিয়ের প্রমাণ করতে পারে। কিন্তু যদি তার বিয়ে রেজিস্ট্রি করা থাকতো তাহলে তাকে এসব কিছুই প্রমাণ করতে হতো না। বিনা অনুমতিতে বিয়ে করার জন্য রফিক আইন অনুযায়ী শাস্তি ভোগ করছে। বিবাহ রেজিস্ট্রেশন না করা একটা শাস্তিযোগ্য অপরাধ। সুতরাং এ ধরণের অপরাধ করা থেকে বিরত থাকতে হবে।

বিবাহরেজিস্ট্রেশন: ব্যাখ্যা

ব্যাখ্যা:

১৯৭৪সালেরমুসলিমবিবাহওতালাক(রেজিস্ট্রেশন) আইনঅনুযায়ীপ্রতিটিবিবাহসরকারনির্ধারিতকাজীদ্বারারেজিস্ট্রেশনকরাআবশ্যক।

বিবাহরেজিস্ট্রেশননাকরাশাস্তিযোগ্যঅপরাধ।১৮৭২সালেরখ্রিস্টানম্যারেজএ্যাক্টঅনুযায়ীখ্রিস্টানদেরবিয়েরেজিস্ট্রেশনকরাবাধ্যতামূলক।

খ্রিস্টানবিয়েতেরেজিস্ট্রেশনবিয়েরএকটিঅংশহওয়ায়প্রায়সকলবিয়েরইরেজিস্ট্রেশনহয়েথাকে।

ব্যাখ্যা:

 

কেউযদিবিয়েরেজিস্ট্রেশনেরবিধানলঙ্ঘনকরেনতাহলেতার২বৎসরেরবিনাশ্রমকারাদন্ডবা

৩০০০টাকাজরিমানাবাউভয়দন্ডহতেপারে।তবেরেজিস্ট্রেশননাহলেবিয়েবাতিলহবেনা।বিয়েরেজিস্ট্রেশনের

মাধ্যমেউভয়েরউপরকিছুদায়-দায়িত্ববর্তায়। 

ব্যাখ্যা:

 

১৮৭২সালেরখ্রিস্টানম্যারেজএ্যাক্টঅনুযায়ীখ্রিস্টানদেরবিয়েসম্পাদিতহয়।খ্রিস্টানবিয়েএকটিধর্মীয়অনুষ্ঠানএবংএকটিপবিত্রচুক্তি।

খ্রিস্টানবিয়েলিখিতমাধ্যমেসম্পাদিতহয়এবংরেজিষ্ট্রিবাধ্যতামূলকভাবেকরতেহয়।খ্রিস্টানবিয়েরেজিস্ট্রেশনেরপ্রয়োজনীয়ধাপগুলোহলো:

1.       বিয়েরপাত্র-পাত্রীরপুরোনামওডাকনামএবংপেশাবাঅবস্থা

2.      পাত্র-পাত্রীরআবাসস্থলওবাসস্থানেরঠিকানা

3.      পাত্র-পাত্রীকতদিনধরেঐএলাকায়বসবাসকরছেতারপ্রমাণপত্র

4.      বিয়েসম্পাদনেরচার্চবাঅন্যকোনস্থান

নোটিশপ্রাপ্তিরপরচার্চেরধর্মযাজকনোটিশটিখোলাজায়গায়লাগিয়েদেবেন।যাতেনোটিশটিসকলেরনজরেআসে।

এভাবেনোটিশকয়েকসপ্তাহঝোলানোথাকবেযাতেকারোকোনোআপত্তিথাকলেতিনিযেনআপত্তিকরতেপারেন।

যদিকোনআপত্তিনাপানতাহলেচার্চপ্রধানবিয়েরপক্ষগণেরনিকটথেকেএকটিঘোষণাগ্রহণকরবেন।

এইঘোষণাটিবিয়েরপক্ষগণম্যাজিস্ট্রেটেরসামনেহাজিরহয়েদিবেনযাতেথাকবে-

2) বিয়েরপাত্র-পাত্রীরমধ্যেজানামতেএমনকোনঘনিষ্টআত্মীয়তাবারক্তেরসম্পর্কনেইযাতেতাদেরবিয়েতেআইনসম্মতবাধাআছে।

3)বিবাহেরপাত্র-পাত্রীদুজনেইআইনঅনুযায়ীসাবালক।

এইঘোষণাসম্পন্নহওয়ারকমপক্ষে৪দিনপরচার্চেরধর্মযাজকবিয়েরআবেদনকারীকেএকটিসার্টিফিকেটপ্রদানকরবেন।

সার্টিফিকেটজারির২মাসেরমধ্যেবিয়েরেজিস্ট্রেশনকরতেহবে।

 

ব্যাখ্যা:

 

একটিইউনিয়নে১জনসরকারিবিয়েরেজিষ্টারদায়িত্বপ্রাপ্তথাকেন।এইরেজিষ্টারজেলারেজিষ্টারএবংজেলারেজিষ্টারচূড়ান্তভাবে

রেজিস্ট্রেশনমহাপরিচালকেরঅধীনেওতত্ত্বাবধানেদায়িত্বপালনকরেথাকেন।

ব্যাখ্যা:

   

রোমানক্যাথলিকধর্মযাজক, চার্চঅবইংল্যান্ডঅথবাচার্চঅবস্কটল্যান্ডএরকোনযাজক, নির্বাচিতকোনবিশপ, খ্রিস্টানম্যারেজএ্যাক্ট১৮৭২

এরআওতায়লাইসেন্সপ্রাপ্তকোনমিনিষ্টারঅবরিলিজিয়নঅথবাউক্তএ্যাক্টেরআওতায়নিযুক্তকোনবিবাহরেজিষ্টারখ্রিস্টানবিবাহসম্পাদনও    করতেপারেন।

তথ্যসূত্র

1. বাংলাদেশবিবাহরেজিস্ট্রেশন, ১৯৯৮, গণপ্রজাতন্ত্রীবাংলাদেশসরকারএরমহিলাওশিশুবিষয়কমন্ত্রণালয়কর্তৃক, ইউনিসেফবাংলাদেশ-

এরসহায়তায়প্রকাশিত।

2.     পারিবারিকআইনেবাংলাদেশেরনারী, আইনওসালিশকেন্দ্র, প্রথমপ্রকাশ: জুন-১৯৯৭।

3.     মুসলিমবিবাহওতালাক(রেজিস্ট্রেশন) আইন, ১৯৭৪।

4.     http://www.minlaw.gov.bd/mregistration.htm  (১৪মে২০১০তারিখেপর্যবেক্ষণকৃত)


Share with :

Facebook Twitter